counter create hit অতলান্ত - Download Free eBook
Hot Best Seller

অতলান্ত

Availability: Ready to download

অন্ধকারাচ্ছান্ন স্মৃতি-বিস্মৃতির অতল গহীনে তলিয়ে যাওয়া এক ভ্রান্তিময় ও রক্তাক্ত উপাখ্যান। মাহাতাব রশীদের লেখা ও আঁকায় ঢাকা কমিক্স থেকে প্রকাশিত এম রেটেড ডার্ক ফিকশন।


Compare

অন্ধকারাচ্ছান্ন স্মৃতি-বিস্মৃতির অতল গহীনে তলিয়ে যাওয়া এক ভ্রান্তিময় ও রক্তাক্ত উপাখ্যান। মাহাতাব রশীদের লেখা ও আঁকায় ঢাকা কমিক্স থেকে প্রকাশিত এম রেটেড ডার্ক ফিকশন।

42 review for অতলান্ত

  1. 4 out of 5

    তানজীম Rahman)

    রকমারির বিশ্রীচোদা ডেলিভারি সার্ভিসের সর্বাত্মক প্রচেষ্টা উপেক্ষা করে বইটা শেষমেষ আমার হাতে এলো। তবে পুরোপুরি অক্ষত অবস্থায় নয়। বাঁ দিক তুবড়ে শেষ করে দিয়েছে, কারণ আমার অর্ডার করা কয়েকটা হার্ডকভার বইয়ের সাথে মুচড়ে অতলান্তের কপি প্যাক করা হয়েছিলো। যাই হোক, এবার আসি বইয়ের ভেতরে যা আছে সেই প্রসঙ্গে। যা ভালো লেগেছে: বাংলাদেশে যে কয়েকটা কমিক বুক পড়ার সুযোগ পেয়েছি, তাদের বেশিভাগের মধ্যে একটা সমস্যা প্রকট। প্রতিটা প্যানেল আলাদা করে দেখতে সুন্দর হলেও একসাথে দেখতে সেগুলো খুবই শক্ত, কাঠখোট্টা। স রকমারির বিশ্রীচোদা ডেলিভারি সার্ভিসের সর্বাত্মক প্রচেষ্টা উপেক্ষা করে বইটা শেষমেষ আমার হাতে এলো। তবে পুরোপুরি অক্ষত অবস্থায় নয়। বাঁ দিক তুবড়ে শেষ করে দিয়েছে, কারণ আমার অর্ডার করা কয়েকটা হার্ডকভার বইয়ের সাথে মুচড়ে অতলান্তের কপি প্যাক করা হয়েছিলো। যাই হোক, এবার আসি বইয়ের ভেতরে যা আছে সেই প্রসঙ্গে। যা ভালো লেগেছে: বাংলাদেশে যে কয়েকটা কমিক বুক পড়ার সুযোগ পেয়েছি, তাদের বেশিভাগের মধ্যে একটা সমস্যা প্রকট। প্রতিটা প্যানেল আলাদা করে দেখতে সুন্দর হলেও একসাথে দেখতে সেগুলো খুবই শক্ত, কাঠখোট্টা। স্টিফ। গল্প এক প্যানেল থেকে আরেক প্যানেলে বয়ে যায় না। প্রতিটা প্যানেল গাটার নদীর বাঁধের মতো কাজ করে। প্যানেলগুলোকে একই ঘটনার চলমান দৃশ্য বলে মনে হয় না। বরং মনে হয় আলাদা আলাদা পোস্টার দেখছি। অতলান্তে এই সমস্যাটা একদমই দেখিনি। সিকোয়েনশিয়াল আর্ট বলেই মনে হয়েছে। এবং গল্পের প্রয়োজন অনুযায়ী প্যানেল ডিজাইন হয়েছে। নকুল দেবের চোখের ওপর এম্ফেসিস দেওয়ার জন্য একটা আধ-পৃষ্ঠার প্যানেলের ভেতর দু’টো ছোট ছোট প্যানেল ইনসেটে দেওয়া হয়েছে। দুই পৃষ্ঠাজুড়ে যে স্প্রেডগুলো করা হয়েছে, সবগুলোই গল্পের দরকারে। এবং সে কারণে স্প্রেডগুলো প্রচণ্ড ধাক্কা দেয়, উদ্দেশ্য সাধনে সফল হয়। গল্পটা সব মিলিয়ে বেশ জমজমাট ছিলো। প্রধান রহস্যের শুরুটা পরিচিত হলেও ছোটখাটো কিছু ডিটেইল মনোযোগ ধরে রাখতে পেরেছে। তবে লেখার সবচেয়ে প্রশংসনীয় বিষয়গুলোর মধ্যে একটা ছিলো ডায়ালগ। এক্সপোজিশন বাদ দিয়ে যে ডায়ালগ ছিলো, সেগুলো পড়তে অত্যন্ত সাবলীল আর ন্যাচারালিস্টিক লেগেছে। আঞ্চলিক উচ্চারণের ব্যবহার আমি বেশ পছন্দ করি, এখানে দেখেও ভালো লাগলো। আর্ট নিয়ে আরও কিছু কথা বলে এই অংশটা শেষ করি। বেশিরভাগ প্যানেলে গাঢ় কালো ব্যাকগ্রাউন্ড গল্পে (আক্ষরিক অর্থেই) অন্ধকার আবহ তৈরি করতে সাহায্য করেছে। সাউন্ড এফেক্টের লেটারিং এবং কিছু ভৌতিক চেহারার ডিজাইন জুনজি ইতোর কাজের কথা মনে পড়িয়ে দেয়। অপার্থিব জগতের দৃশ্যগুলোতে চমৎকার গা ছমছমে ভাব আছে। যা ভালো লাগেনি: গল্পের অধিকাংশ এক্সপোজিশন ডায়ালগে হয়েছে, যে কারণে অনেক জায়গায় স্পিচ বেলুন অতিরিক্ত লম্বা হয়ে গিয়েছে। এতে গল্প এবং আঁকা দুইয়েরই ক্ষতি হয়েছে বেশ। হায়দারের মতো গুরুত্বপূর্ণ চরিত্রের ডিজাইন এতো সাদামাটা না হয়ে আরেকটু নজরকাড়া হওয়া দরকার ছিলো। বুঝতে পেরেছি তাকে সাধারণ মানুষ হিসেবে দেখানোটা জরুরি, কিন্তু একটা সিগনেচার এলিমেন্ট কাজে দিতো খুব। হয়তো একটা ভাঙা চশমা, বা শার্টের বুকে দাগ-কিছু একটা। নকুল দেবের দারুণ ডিজাইনের সামনে তাকে দেখতে অত্যন্ত ফিকে লাগে। সব মিলিয়ে অত্যন্ত ভালো লেগেছে। এই গল্পটা শুধু লেখায় হলেও আমি পড়তাম। সাথে অসাধারণ আর্ট যোগ হওয়ায় এক্সেপশনাল হয়েছে। দ্বিতীয় খণ্ডের অপেক্ষা রইলাম।

  2. 4 out of 5

    জাহিদ হোসেন

    দুর্দান্ত আর্ট ওয়ার্ক, প্রমিসিং স্টোরি। গল্পটা ছোট্ট, তবে এনগেজিং। বেশ কিছু প্রশ্নের জবাব পাওয়া বাকি রয়ে গেছে। দ্বিতীয় খন্ডের অপেক্ষায় থাকলাম।

  3. 5 out of 5

    Azrof Islam Orko

    "আসেন মিয়া ভাই, আসেন আপাগো! দেইখা যান জীবনের চরকি,ঘুরঘুরঘুর চরকি!" "ব্যবসা চলে না,শেয়ারে লস, চাকরি পান না?লগে পরিবারের মনও পান না? ষোল কিসিমের চৌদ্দ ঝামেলার এই চরকি তে উইঠা বসছেন সক্কলে,গেন্দা বয়স থেইকা একটানে বুড়া হইয়া একদিন বাদ আসর আজরাইল আইসা কয়,হেলুু!" "এই ঝামেলার জীবনে দৌড়াইতে দৌড়াতে মাজা করছেন ব্যথা,ঠুস কইরা মরার দিন গুনতেছেন,কিন্তু হারিকেন দিয়া বিছরাইয়া বিছরাইয়াও মিলতেছে না শান্তি।" "শোনেন মিয়া ভাই,শোনেন আপাগো,নকুল দেবের দুইটি চরণ শুইনা যান দুইটি মাত্র মিনিট ধইরা।" এক কথায় বলতে গ "আসেন মিয়া ভাই, আসেন আপাগো! দেইখা যান জীবনের চরকি,ঘুরঘুরঘুর চরকি!" "ব্যবসা চলে না,শেয়ারে লস, চাকরি পান না?লগে পরিবারের মনও পান না? ষোল কিসিমের চৌদ্দ ঝামেলার এই চরকি তে উইঠা বসছেন সক্কলে,গেন্দা বয়স থেইকা একটানে বুড়া হইয়া একদিন বাদ আসর আজরাইল আইসা কয়,হেলুু!" "এই ঝামেলার জীবনে দৌড়াইতে দৌড়াতে মাজা করছেন ব্যথা,ঠুস কইরা মরার দিন গুনতেছেন,কিন্তু হারিকেন দিয়া বিছরাইয়া বিছরাইয়াও মিলতেছে না শান্তি।" "শোনেন মিয়া ভাই,শোনেন আপাগো,নকুল দেবের দুইটি চরণ শুইনা যান দুইটি মাত্র মিনিট ধইরা।" এক কথায় বলতে গেলে, "দুর্দান্ত!!!!" বাংলা ভাষায় এরকম গ্রাফিক নভেল কখনো আসবে বলে ভাবি নি। স্টোরিটেলিং,ক্যারেকটার বিল্ডআপ, আর্টওয়ার্কের ডিটেইলিং সবই সন্তোষজনক। নিয়মিত মাঙ্গা পড়ার দরুন Naoki Urasawa, Shuzo Oshimi,Mintaro Mochizuki, Junji Itou এর কাজ নিয়ে ঘাঁটাঘাঁটি করা হয়। এতো দারুণ ইউনিক প্লট,দারুণ স্টোরিলাইনের গ্রাফিক নভেলের জন্যই তখন মন শুকিয়ে যাওয়া নদীর মতোই বর্ষার পানির অপেক্ষায় থাকে, একটু ভালো কিছু পড়বার আশায়। "অতলান্ত" সেই তৃষ্ণা পূরণে প্রায় অনেকটা সার্থক বলা যায়। কারণ, দেশি গ্রাফিক নভেলের প্রতি আমার এতোটাও আশা ছিল না। সিনোপসিস নিয়ে বেশি কিছু বলতে যাওয়াটা আমার কাইন্ড অফ বোকামি হবে। কারণ, মাত্র ৫৬ পেজের গ্রাফিক নভেল। বেশি বলতে গেলে পড়ার মজা নষ্ট। শুধু এটুকু না বললেই না, অতলান্ত অন্ধকারাচ্ছান্ন স্মৃতি-বিস্মৃতির অতল গহীনে তলিয়ে যাওয়া এক ভ্রান্তিময় ও রক্তাক্ত উপাখ্যান। গল্পের শুরুটা খুবই পরিচিত। শহর জুড়ে হয়ে যাচ্ছে একের পর এক ধারাবাহিক খুন। কিন্তু এই পরিচিত স্টার্টিং থেকেই ঘটনার মোড় টুইস্ট খেতে থাকে। স্টোরিটেলিং এগিয়েছে বেশ নন-লিনিয়ার ভঙ্গিতেই। আর ডায়ালগে বেশ সাবলীলতা বাড়তি একটা সৌন্দর্য এনে দিয়েছে। মানে একদম প্রমিত বাংলা ভাষার ব্যবহার না করে, আঞ্চলিকতা, রোজকার কথাবার্তাকে এতো Raw ভাবে উপস্থাপন করাটা ভালো লেগেছে আমার। সাইকোলজি,প্যারাসাইকোলজির মিশেলে থ্রিলার, হরর,ডার্ক ফ্যান্টাসি,ড্রামা সবকিছুর পার্ফেক্ট ব্লেন্ডিং। যেন একটা দুর্দান্ত ককটেল সাথে বাড়তি স্বাদের জন্য মিন্ট হিসেবে আর্টওয়ার্ক যোগ করা হয়েছে। হ্যানিবাল সিরিজের পর আবার কোথাও থটস ইমপ্ল্যান্ট, সাজেস্টিভ হিপনোথেরাপি, ইনডিউসড ক্রাইম ইন্টারেকশন দেখবো,আর সেটা অতলান্তে.. এটা আমার ইমাজিনেশনেরও বাইরে ছিল। সবথেকে যত্ন নিয়ে বিল্ডআপ করা ক্যারেকটার হলো নকুল দেবের ক্যারেকটারটা। তার ব্যাকস্টোরি থেকে শুরু করে সবকিছু দারুণ লেগেছে আমার। তারপর আসে হায়দার। তদন্তকারী অফিসার হায়দারের লিমিটেশন, ক্রোধ সবকিছুই ডিটেইলসে ছোট ছোট ঘটনা প্যানেলগুলোতে আনা হয়েছে। এদিকটাও বেশ অবাক করেছে আমায়। আর্টওয়ার্কের বেশ প্রশংসাই করতে হয়। গল্পে ডার্কার শেডস ব্যবহারের কারণে একটা আবছায়া অন্ধকার অন্ধকার ভাব আসে। আর কিছু উইয়ার্ড, Bizarre অনুভব করানোর মতো আর্টওয়ার্কও ছিল। কিন্তু কতগুলোতে করিয়ে দেয়, যা স্পেশালি রিসেন্ট পড়া Shiki,Uzumaki, Gyo, Tomie এসবে খেয়াল করেছিলাম। আর্টওয়ার্কের সিকোয়েন্স মেইনটেইনও করা হয়েছে বেশ নিপুণভাবেই। কিন্তু ক্ষেত্রবিশেষে বাবলের কারণে আর্টওয়ার্ক পুরোটা ফোকাস পায় নি। বেশ অনেকটা সময় খুঁটিয়েই বুঝতে হয়েছে সেটা। ক্ষেত্রবিশেষে অ্যারো দিয়ে বাবল কানেক্ট করা হয়েছে। তাই খেই হারানোর মতো কোনো উটকো ঝামেলার সম্মুখীন হতে হয় নি। নেগেটিভ দিক বলবো কিনা জানি না। কিন্তু মাত্র ৫৬ পৃষ্ঠার হওয়ায় বেশ লুকিয়ে বাঁচিয়ে পড়ে গেছি আমি। তারপরও বেশ কিছু রহস্যের কিনারা করা হয় নি। ধোঁয়াশা থেকে গেছে। আশা করছি পরের খণ্ডে সবকিছুর সমাধান হবে। আর পড়েছি খানিকটা যত্ন নিয়েই। শুধু মনে হচ্ছিলো, এই বুঝি শেষ হয়ে গেল! আর এতোটাই মশগুল ছিলাম যে,অন্যকিছুর কথা খেয়াল ছিল না। "আমি এক গভীরভাবে অচল মানুষ হয়তো এই নবীন শতাব্দীতে নক্ষত্রের নিচে; " - জীবনানন্দ দাশ একনজরে - গ্রাফিক নভেল: অতলান্ত ক্রিয়েটর : মাহাতাব রশীদ প্রকাশনা : ঢাকা কমিকস মূদ্রিত মূল্য: ১৫০ টাকা পৃষ্ঠা: ৫৬ ব্যক্তিগত রেটিং : ৪.৫/৫ গুডরিডস রেটিং : ৪.৬২/৫

  4. 4 out of 5

    Asma Akhi

    "আমি এক গভীরভাবে অচল মানুষ হয়তো এই নবীন শতাব্দীতে নক্ষত্রের নিচে!" ~ পঞ্চরোমান্সের পরে ঢাকা কমিক্সের বেস্ট গ্রাফিক নভেল হল অতলান্ত। আমি ঢাকা কমিক্সের বেশ কয়েকটা সিরিজ পড়েছিলাম, কিন্তু আর্ট ওয়ার্ক ভালো হলেও গল্পের প্লট বা গল্প বলার স্টাইল খুবই দূর্বল ছিল। কিন্তু সেইদিক থেকে অতলান্ত পাশ করে গেছে, খুবই এংগেজিং স্টোরি। সেই সাথে দুর্দান্ত আর্ট। মাহাতাবের আর্টওয়ার্ক আগে থেকেই ভালো লাগতো, কিন্তু ওই যে এতো সুন্দর গল্প লিখতে পারে সেটা জানা ছিলনা। সেকেন্ড পার্টের অপেক্ষায়। "আচ্ছা, কারো মাথায় হাজার লোকে "আমি এক গভীরভাবে অচল মানুষ হয়তো এই নবীন শতাব্দীতে নক্ষত্রের নিচে!" ~ পঞ্চরোমান্সের পরে ঢাকা কমিক্সের বেস্ট গ্রাফিক নভেল হল অতলান্ত। আমি ঢাকা কমিক্সের বেশ কয়েকটা সিরিজ পড়েছিলাম, কিন্তু আর্ট ওয়ার্ক ভালো হলেও গল্পের প্লট বা গল্প বলার স্টাইল খুবই দূর্বল ছিল। কিন্তু সেইদিক থেকে অতলান্ত পাশ করে গেছে, খুবই এংগেজিং স্টোরি। সেই সাথে দুর্দান্ত আর্ট। মাহাতাবের আর্টওয়ার্ক আগে থেকেই ভালো লাগতো, কিন্তু ওই যে এতো সুন্দর গল্প লিখতে পারে সেটা জানা ছিলনা। সেকেন্ড পার্টের অপেক্ষায়। "আচ্ছা, কারো মাথায় হাজার লোকের স্মৃতি জমা থাকলে... সে নিজে আসলে কোনজন? আর হাজার জন্মের স্মৃতি সঙ্গে নিয়েও, সে কি সবচেয়ে নিঃসঙ্গ না? কে-ই বা টিকে থাকে হাজার বছর ধরে,তাকে সঙ্গ দেওয়ার জন্য? "

  5. 4 out of 5

    Wasee

    'অতলান্ত' ঢাকা কমিক্সের সেরা গ্রাফিক নভেলগুলোর একটা। ঢাকা কমিক্সের কমিক/গ্রাফিক নভেলের অনেকগুলোতেই চমৎকার আর্টওয়ার্ক দেখেছি, কিন্তু গল্লের দুর্বলতার কারণে শেষপর্যন্ত সবকিছু পানসে হয়ে যায়। অতলান্তের ক্ষেত্রে আর্টওয়ার্ক আর স্টোরিটেলিং, দুটোই অসাধারণ। ডিটেইলিং এত নিখুঁত, কিছু কিছু জায়গায় চমকে যেতে হয়। নোয়ার এলিমেন্টের ছোঁয়া পেয়েছি অনেক ক্ষেত্রেই। থ্রিলার, ডার্ক ফ্যান্টাসি, হরর - সবকিছুর পার্ফেক্ট ব্লেন্ডিং লক্ষণীয়। মাত্র ৫৪ পৃষ্ঠার একটা গ্রাফিক নভেল, অথচ শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত আতঙ্ক জাগান 'অতলান্ত' ঢাকা কমিক্সের সেরা গ্রাফিক নভেলগুলোর একটা। ঢাকা কমিক্সের কমিক/গ্রাফিক নভেলের অনেকগুলোতেই চমৎকার আর্টওয়ার্ক দেখেছি, কিন্তু গল্লের দুর্বলতার কারণে শেষপর্যন্ত সবকিছু পানসে হয়ে যায়। অতলান্তের ক্ষেত্রে আর্টওয়ার্ক আর স্টোরিটেলিং, দুটোই অসাধারণ। ডিটেইলিং এত নিখুঁত, কিছু কিছু জায়গায় চমকে যেতে হয়। নোয়ার এলিমেন্টের ছোঁয়া পেয়েছি অনেক ক্ষেত্রেই। থ্রিলার, ডার্ক ফ্যান্টাসি, হরর - সবকিছুর পার্ফেক্ট ব্লেন্ডিং লক্ষণীয়। মাত্র ৫৪ পৃষ্ঠার একটা গ্রাফিক নভেল, অথচ শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত আতঙ্ক জাগানো ঘূর্ণিঝড়ের মতো গতিশীল। গল্প কোনদিকে বাঁক নেবে, প্রথম অংশ পড়ে বোঝা কঠিন। অনেক কিছুই অস্পষ্ট থেকে গেছে। তবে এই বইটাকে শুধুমাত্র আর্টওয়ার্কের মাধ্যমে দুর্দান্ত আবহ সৃষ্টির কারণেই পাচঁ তারা দিয়ে দেয়া যায়। জীবনানন্দ দাশের প্রিয় একটি কবিতা দিয়ে শুরু করায় তারা আরও একটা বাড়ানো গেলে খুশি হতাম!

  6. 5 out of 5

    Bappy Khan

    Loved the effort. This kinda things are new in Bangladesh and I also loved the way Mahatab executed the entire things. there are few minor issues with story telling but artwork and presentation is top notch. <3 I want more and more <3

  7. 5 out of 5

    Nashita

    স্টোরি আর প্লট দুইটাই ইউনিক!!একবারে শেষ করার মতো গ্রাফিক নোভেল।অতি দ্রুত নেক্সট পার্ট চাই💜

  8. 4 out of 5

    Salman Jishan

    অতলান্ত'র জন্য অপেক্ষার প্রহর ফুরিয়েছে আজ। আজকে হাতে পেয়েই সবার আগে শেষ করেছি এই গ্রাফিক নভেলটা। আমার কমিক কিংবা গ্রাফিক নভেল বরাবরই ভালো লাগে। ঢাকা কমিক্স থেকে দুর্দান্ত কিছু কমিক কিনেছিলাম বেশ আগে। কিন্তু অমুক তমুক ধার নিতে নিতে আর নাই। অতলান্তের সবচাইতে স্ট্রং পার্ট হলো স্টোরি টেলিং আর গল্প! আমি মাহাতাবের কাজের ফ্যান সবসময়ই। ওর কাজ করা দেখার সৌভাগ্যও হয়েছে ইয়ার্কিতে থাকতে। এত সুন্দর স্টোরি টেলিং আর আঁকা! আমি দেখে তাজ্জব বনে গেছি। গল্পটা শেষ হয়নি এটায়, সিক্যুয়েল আসবে সামনে। খুবই ইন্টার অতলান্ত'র জন্য অপেক্ষার প্রহর ফুরিয়েছে আজ। আজকে হাতে পেয়েই সবার আগে শেষ করেছি এই গ্রাফিক নভেলটা। আমার কমিক কিংবা গ্রাফিক নভেল বরাবরই ভালো লাগে। ঢাকা কমিক্স থেকে দুর্দান্ত কিছু কমিক কিনেছিলাম বেশ আগে। কিন্তু অমুক তমুক ধার নিতে নিতে আর নাই। অতলান্তের সবচাইতে স্ট্রং পার্ট হলো স্টোরি টেলিং আর গল্প! আমি মাহাতাবের কাজের ফ্যান সবসময়ই। ওর কাজ করা দেখার সৌভাগ্যও হয়েছে ইয়ার্কিতে থাকতে। এত সুন্দর স্টোরি টেলিং আর আঁকা! আমি দেখে তাজ্জব বনে গেছি। গল্পটা শেষ হয়নি এটায়, সিক্যুয়েল আসবে সামনে। খুবই ইন্টারেস্টিং একটা গল্প। ঢাকা কমিক্সে আমার মনে হয় স্ট্রং গল্পের অভাব। মাহাতাব সেটাও পূরণ করে ফেললো এবার। দারুণ একটা গ্রাফিক নভেলের জন্য ধন্যবাদ!

  9. 5 out of 5

    Habiba Mahmuda

    এটার আঁকা আমার বেশ পছন্দ হয়েছে এবং প্লট ও বেশ ভালো। এটার পার্ট ২ আরও দূর্দান্ত হবে বলে আশা রাখছি।

  10. 5 out of 5

    Pranta Ghosh Dastider

    প্রায়ান্ধকার গলিপথে উঁকি মারে বিপদ, আর সেই বিপদকেই অগোচরে গ্রাস করে আরও বড় কোনও আতঙ্ক -এভাবেই শুরু হয় অতলান্ত। আর তারপর? এক বদরাগী পুলিশ, ভণ্ড ফকির, সাইকোলজি এক্সপার্ট, প্রশাসনিক কর্তাব্যক্তি, সাংবাদিক হয়ে নানা আঙ্গিকে একধারা কাহিনীর বিস্তার। কেমন লেগেছে? এক কথায় ভাল। বেশ ভাল। বইয়ের কাগজ থেকে ছাপা, প্রচ্ছদ, মলাটের পুরুত্ত, টাইটেল লেমিনেশন, দাম, সবই যৌক্তিক। আর্টওয়ার্ক বেশ ভাল। তবে দু একটি প্যানেলে মনে হয়েছে ব্যাকগ্রাউন্ড ডিটেলিং-এ আরও কিছু কাজ করা যেতে পারতো। তবে সেটা ইচ্ছাকৃত ভাবেও কম র প্রায়ান্ধকার গলিপথে উঁকি মারে বিপদ, আর সেই বিপদকেই অগোচরে গ্রাস করে আরও বড় কোনও আতঙ্ক -এভাবেই শুরু হয় অতলান্ত। আর তারপর? এক বদরাগী পুলিশ, ভণ্ড ফকির, সাইকোলজি এক্সপার্ট, প্রশাসনিক কর্তাব্যক্তি, সাংবাদিক হয়ে নানা আঙ্গিকে একধারা কাহিনীর বিস্তার। কেমন লেগেছে? এক কথায় ভাল। বেশ ভাল। বইয়ের কাগজ থেকে ছাপা, প্রচ্ছদ, মলাটের পুরুত্ত, টাইটেল লেমিনেশন, দাম, সবই যৌক্তিক। আর্টওয়ার্ক বেশ ভাল। তবে দু একটি প্যানেলে মনে হয়েছে ব্যাকগ্রাউন্ড ডিটেলিং-এ আরও কিছু কাজ করা যেতে পারতো। তবে সেটা ইচ্ছাকৃত ভাবেও কম রাখা হয়ে থাকতে পারে, নির্দিষ্ট চরিত্রগুলোকে ফোকাসে রাখতে। ডায়লগ-এর ক্ষেত্রে সামান্য আপত্তি তুলব। কাছাকাছি উচ্চারণ ব্যবহার করা হয়েছে সবার মুখেই। এক্ষেত্রে কিছুটা ব্যতিক্রম সাইকোলজিস্ট, আর সাংবাদিক। বাকিরা হালের কথ্য ভাষা ধরে রেখেছে। এক্ষেত্রে অন্তত পুলিশের মুখে সম্পূর্ণ শুদ্ধ ভাষারীতি থাকলে আমার ব্যক্তিগতভাবে ভাল লাগত আরেকটু বেশি। খুঁত অনুসন্ধান করে এটুকুই পাওয়া গেল। বাকিটা সম্পূর্ণ লা-জবাব। দু'পাতা জোড়া দৃশ্যপট, একশন আর গতির এফেক্ট, মনস্তাত্ত্বিক ভারসাম্যহীনতাকে আঙ্গিক করে আঁকা প্যানেলগুলো, সাদা-কালো সিন ঝট করে বিপরীতে চলে যাওয়ার ব্যাপারটা, কিছু কিছু ক্ষেত্রে আনঅর্থোডক্স প্যানেলিং, ক্যারেক্টারাইজেশন, সবকিছুই মারমার কাটকাট। প্রচ্ছদে দুর্দান্ত কালারিং থাকলেও ভেতরের রঙহীনতা আশাহত করেনি। তার কারণ, গল্পের আবেশ সম্পূর্ণ ধারণ করতে পেরেছে বর্ণহীনতা। দেশীয় যে ক'টি সামান্য কমিক্স বই পড়ার সুযোগ হয়েছে, তার মধ্যে ঘটনার উপস্থাপন, অঙ্কনশৈলী, প্রোডাকশন সব মিলিয়ে অতলান্তকে আমার অন্যতম সেরা মনে হয়েছে। মাহাতাব রশীদ ভাল কাজ করেছেন, এবং তিনি আরও ভাল কাজ করার ক্ষমতা রাখেন। আগামী সংখ্যায় আরও চমৎকার কিছু পাব কোনও সন্দেহ নেই। আপাতত অধীর আগ্রহে অপেক্ষায় আছি।

  11. 5 out of 5

    Tanim Rahman Papon

    পড়া শেষে একটা কথাই মাথায় ঘুরতেছে "দুর্দান্ত"। এতো চমৎকার করে "মাহাতাব রশীদ" আঁকছেন, রীতিমতো মুগ্ধ আমি এবং এতো চমৎকার প্লট হবে আমি নিজেও ভাবিনি। পঞ্চরোমাঞ্চ ব্যতিত বাংলাদেশে এমন সুন্দর গ্রাফিক নভেল আর দেখিনি। পরিশেষে সবাইকে পড়ার আহ্বান রইলো। পড়া শেষে একটা কথাই মাথায় ঘুরতেছে "দুর্দান্ত"। এতো চমৎকার করে "মাহাতাব রশীদ" আঁকছেন, রীতিমতো মুগ্ধ আমি এবং এতো চমৎকার প্লট হবে আমি নিজেও ভাবিনি। পঞ্চরোমাঞ্চ ব্যতিত বাংলাদেশে এমন সুন্দর গ্রাফিক নভেল আর দেখিনি। পরিশেষে সবাইকে পড়ার আহ্বান রইলো।

  12. 5 out of 5

    Subah Alam

    দুর্দান্ত স্টোরিলাইন আর আর্টওয়ার্ক। এক নিঃশ্বাসে পড়ে ফেলার মত একটা বই৷ পরের পর্বের অপেক্ষায় রইলাম।

  13. 5 out of 5

    Mohtasim Hadi Rafi

    Not something you see everyday, in Bengali of course. Will wait for the second part for sure.

  14. 5 out of 5

    Bimugdha Sarker

    ভালো লেগেছে! পরবর্তী ইস্যুর অপেক্ষায়।

  15. 5 out of 5

    Kaosar Ashik

  16. 4 out of 5

    S.k. Siddiq

  17. 4 out of 5

    Sharif Mohammad

  18. 4 out of 5

    Kantamoyee Sneha

  19. 4 out of 5

    Salman Sakib Shahryar

  20. 5 out of 5

    Shaikh Hassan Nafi

  21. 5 out of 5

    সালমান হক

  22. 5 out of 5

    Rakibul Hasan Adnan

  23. 4 out of 5

    Sihan Naeem

  24. 4 out of 5

    Fariha

  25. 4 out of 5

    Rizwan

  26. 4 out of 5

    Ashikur Rahman Bishal

  27. 4 out of 5

    Masuma Tasnim

  28. 4 out of 5

    Ibrahim Faisal

  29. 5 out of 5

    Zamsedur Rahman

  30. 4 out of 5

    Madhurima Nayek

  31. 4 out of 5

    Ahmed Aziz

  32. 4 out of 5

    Atiq Ishraq Emon

  33. 5 out of 5

    Reaz Uddin Rashed

  34. 4 out of 5

    Anik

  35. 5 out of 5

    Ajwad Bari

  36. 5 out of 5

    মাহাতাব রশীদ

  37. 5 out of 5

    Shahriar Pranto

  38. 5 out of 5

    Hasibul Shanto

  39. 5 out of 5

    Wasima Noor Iqra

  40. 4 out of 5

    Rafsan Riyadh

  41. 4 out of 5

    Ghumraj Tanvir

  42. 4 out of 5

    Nafis Khan

Add a review

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Loading...
We use cookies to give you the best online experience. By using our website you agree to our use of cookies in accordance with our cookie policy.